সু চির পদত্যাগ করা উচিত: জাতিসংঘ


নিজস্ব প্রতিবেদক

Published: 2018-08-30 12:23:01 BdST | Updated: 2018-11-19 12:47:31 BdST

ফাইল ছবি

মিয়ানমারের সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে গতবছর ভয়াবহ সামরিক নিধনের ঘটনায় দেশটির ডি ফ্যাক্টো নেত্রী অং সান সু চির পদত্যাগ করা উচিত। এ অভিমত প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক হাইকমিশনার জায়েদ রাদ হুসেইন।

বিবিসিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধে নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী সুচি যেভাবে ব্যর্থ হয়েছেন, তা দুঃখজনক।

সম্প্রতি জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে রোহিঙ্গা নিধনকে ‘জাতিগত নিধন’ হিসেবে উল্লেখ করে এর সঙ্গে জড়িত সেনা কর্মকর্তাদের বিচরের আওতায় আনার সুপারিশ করা হয়েছে। ওই প্রতিবেদন প্রকাশের মাত্র দু’দিন পরই এ মন্তব্য করলেন জাতিসংঘের এই বিদায়ী হাইকমিশনার। যদিও মিয়ানমার জাতিসংঘের ওই প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে।

 

বুধবার মিয়ানমার সরকারের মুখপাত্র জ হতে বলেন, ‘আমরা এফএফএম (জাতিসংঘ ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন) প্রতিনিধিদের মিয়ানমারে ঢুকতে দেইনি। তাই মানবাধিকার পরিষদের এই প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করছি। একই সঙ্গে জাতিসংঘের এ সংক্রান্ত কোনো প্রস্তাবকে আমরা মেনে নিতে পারি না।’

সোমবার (২৭ আগস্ট) প্রকাশিত জাতিসংঘের ওই প্রতিবেদনে রোহিঙ্গা নিধন বন্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ হওয়ায় সু চির-ও সমালোচনা করা হয়েছে।

ওই প্রতিবেদনের সূত্র ধরেই জায়েদ রাদ হুসেইন বলেন, ‘রোহিঙ্গা নিধন বন্ধে তিনি (সুচি) ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারতেন। কেননা পদাধিকার বলেই তিনি সেই ক্ষমতা রাখেন। কিন্তু তিনি এ বিষয়ে নীরব রইলেন। কিছু না করতে পারলে, তিনি অন্তত পদত্যাগ করতে পারতেন।’

জাতিসংঘের মানবাধিকার হা্ইমিশনার আরো বলেন, ‘তার তো বার্মার (মিয়ানমার) সেনাবাহিনীর মুখপাত্র হয়ে থাকার কোনো প্রয়োজন ছিল না। বরং তিনি সোচ্চার হতে পারতেন।’

এরপরই সু চিকে কটাক্ষ করে জাতিসংঘের মানবাধিকার হাইকমিশনার বলেন, ‘আমি দেশের নামমাত্র নেতা হতে প্রস্তুত, কিন্তু এই অবস্থার অধীনে কিছুতেই নয়।’

রোহিঙ্গা নির্যাতনের ঘটনায় গতবছর আন্তর্জাতিক অঙ্গণে ব্যাপকভাবে সমালোচিত হন সু চি। তখন অনেকেই তার নোবেল পুরস্কার ফিরিয়ে নেয়ারও দাবি করেছিলেন। তবে বুধবার নোবেল কমিটি বলেছে, মিয়ারমারের নেত্রীর পুরস্কার ফিরিয়ে নেয়া হবে না।

মিয়ানমারে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার জন্য সামরিক শাসকেদের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করেন সু চি, এজন্য তাকে বহুদিন গৃহবন্দি থাকতে হয়েছে। যার প্রেক্ষিতে ১৯৯১ সালে তাকে নোবেল শান্তি পুরস্কার দেয়া হয়।

গতবছরের ২৫ আগস্ট থেকে রাখাইন রাজ্যের সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে নিপীড়ন শুরু করে মিয়ানমার বাহিনী। তখন প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়ে ৭ লাখের বেশি রোহিঙ্গা। এসব শরণার্থীদের দেশে ফিরিয়ে নিতে টালবাহানা করছে মিয়ানমার সরকার।

সূত্র: বিবিসি

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত


একদলীয় শাসন ব্যবস্থাধীন উত্তর কোরিয়ায় ক্ষমতাসীন ওয়ার্কার্স পার্টির পলি...

আন্তর্জাতিক | 2017-10-09 18:01:54

৬টি বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিশেষ অবদানের জন্য নোবেল পুরস্কার দেওয়া হয়। ৬টি...

আন্তর্জাতিক | 2017-10-07 09:25:46

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন আর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্র...

আন্তর্জাতিক | 2017-10-14 22:35:14

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের ম্যানহাটনে সাইকেল চালানোর রুটে ট্রাক তুলে দ...

আন্তর্জাতিক | 2017-11-01 17:23:18

তুরস্কের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রয়োজন নেই বলে মন্তব্য করেছেন তুরস্কের প...

আন্তর্জাতিক | 2017-10-14 09:35:00

সোমালিয়ার রাজধানী মোগাদিসুতে গাড়ি বোমা হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ি...

আন্তর্জাতিক | 2017-10-15 18:21:43

দ্য মেট্রোর প্রতিবেদনে বলা হয়, ওই নারী কর্মকর্তা হলেন সাব-লেফটেন্যান্ট...

আন্তর্জাতিক | 2017-10-15 18:27:32

মিশরে মিয়ানমার দূতাবাসে ছোট্ট একটি বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে জঙ্গি গোষ্ঠী হাজম...

আন্তর্জাতিক | 2017-10-02 08:18:29