রংপুর মেডিকেলের মর্গে জায়গা সংকট, লাশ পচছে মেঝেতে


মাহবুবুল ইসলাম

Published: 2018-01-21 12:07:02 BdST | Updated: 2018-08-15 02:06:22 BdST

রংপুর প্রতিনিধি :: রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গের ফ্রিজগুলোর বেহাল অবস্থা। তাই মৃতদেহ রাখা হচ্ছে মর্গের মেঝেতে। ফলে যথাযথ সংরক্ষণের অভাবে সেখানেই পচে যাচ্ছে লাশগুলো। পুরো এলাকাই পচা গন্ধে ভরে আছে। মর্গে প্রতিদিন যেসব কর্মীরা মৃতদেহ ময়না তদন্তের সময়ে চিকিৎসকের সহযোগী হয়ে কাটাছেঁড়া করেন,লাশ বিভিন্ন কক্ষে আনা নেওয়া করেন,মৃতদেহের গোসল করান তারাও মৃতদেহগুলোর অবস্থা দেখে বিচলিত। অথচ এ সমস্যার সমাধান করতে কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছে না কর্তৃপক্ষ।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মর্গের লাশ রাখার ফ্রিজ দীর্ঘদিন ধরে নষ্ট থাকায় তাদের কিছুই করার নেই। প্রতিদিন একাধিক মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য আসে। তাই বাধ্য হয়েই তারা এভাবে লাশ রাখছেন।
মর্গের একাধিক সূত্র জানায়,মৃতদেহ রাখতে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে ফ্রিজ (মরচুয়ারি কুলার)রয়েছে ২ টি। প্রতিটি ফ্রিজে চারটি করে ড্রয়ার রয়েছে। একটি ফ্রিজে সব মিলিয়ে ২০টি মৃতদেহ রাখা যায়। ফ্রিজ নষ্ট প্রায় চার মাস ধরে। ২ টি ফ্রিজই যদি ঠিক থাকতো তাহলে মৃতদেহগুলো মেঝেতে ফেলে রাখতে হতো না। এগুলো পচে আলামত নষ্ট হওয়ার আশঙ্কাও থাকতো না। ফ্রিজ ছাড়াও মর্র্রে এসি নষ্ট হয়ে আছে প্রায় এক বছর ধরে। এর মধ্যে তিনটি ময়না তদন্ত করা হয় যে ঘরে সেই ঘরের। আরেকটি ময়না তদন্তকারী চিকিৎসকদের বসার কক্ষের।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক চিকিৎসক বলেন, ‘বিষয়টি খুবই জরুরি’ উল্লেখ করে এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে জানানো হলেও কোনও সুরাহা হয়নি। ফলে, নতুন মরদেহ এলে সেগুলো নির্ধারিত ফ্রিজে রাখা যাচ্ছে না। বাইরে রাখতে হচ্ছে। তারা বলছেন, ‘মরদেহ ঠিকমতো ফ্রিজিং করতে না পারলে তার আলামত নষ্ট হয়ে যায়। ফলে ময়না তদন্তে মৃত্যুর কারণ নির্ণয় করা খুব কঠিন হয়ে পড়ে। বাইরে রাখায় ‘কজ অব ডেথ’ নির্ণয় করাও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যাচ্ছে।’

জানা গেছে,অনেক দাগী মরদেহ রাখা আছে। আদালতের নির্দেশে মরদেহ সংরক্ষণ আছে প্রায় তিন বছর ধরে। কিন্তু মর্গে প্রায় প্রতিদিন আত্মহত্যা, সড়ক দুর্ঘটনাসহ নানা ঘটনায় নিহত পাঁচ-ছয়টি লাশ আসে। ফ্রিজের অপ্রতুলতার কারণে সেগুলো ঠিকমতো সংরক্ষণ করা সম্ভব হয় না।
এসি নষ্ট, ফলে প্রচন্ড গরমে ময়না তদন্তের কাজ ঠিকমতো করা টিকিৎসকের পক্ষে সম্ভব হয় না। সাফোকেশন হয়, লাশের গন্ধে থাকা যায় না। মাঝে মাঝে মৃতদেহ যখন এই মূল কক্ষে এনে রাখা হয়, তখন সেগুলো ফুলে ফেঁপে যায়। ফলে ময়না তদন্ত করলেও তার ঠিক ফলাফল পাওয়া নিয়ে সংশয় থাকে।
স্বাভাবিকভাবে বিকালে বা রাতের দিকে কোনও মৃতদেহ আসলে তার ময়না তদন্ত হয় পরদিন সকালে। কিন্তু ফ্রিজ নষ্ট থাকায় লাশগুলো রাখতে হয় ফ্লোরে। এতে করে লাশের স্বাভাবিকতা হারায়।

‘সরকারি প্রকৌশলীরা কয়েকবার এগুলো দেখে গেছেন। এগুলো আর ঠিক করা তাদের পক্ষে সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন। ফলে যত দ্রুত সম্ভব এগুলোকে অকেজো ঘোষণা করে নতুন ফ্রিজ দেওয়া দরকার । ’

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত


বাঙ্গালীদের ঘরে ঘরে প্রতিদিনের রান্না উপকরণে কাঁচা মরিচ অবশ্যই ব্যবহার...

স্বাস্থ্য | 2017-10-04 19:59:34

কাঁকরোল। ছোট কাঁঠালের মতো দেখতে কাঁটা কাঁটা সবুজ রঙ্গের একটি সবজি। কাক...

স্বাস্থ্য | 2017-10-01 19:53:54

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার থাইংখালীতে আদ্-দ্বীন হাসপাতালের উদ্যোগে স্থা...

স্বাস্থ্য | 2017-10-09 18:42:44

ইয়াবা মূলত মায়ানমারের শান প্রদেশে পাহাড়ে ঘোড়াদের খাওয়ানো হতো। কেন...

স্বাস্থ্য | 2017-10-14 12:31:48

আদ্-দ্বীন হাসপাতাল মগবাজারে শুরু হচ্ছে বিনামূল্যে বয়স্ক পুরুষদের প্রস্...

স্বাস্থ্য | 2018-02-08 19:09:58

আমাদের খাদ্য তালিকায় প্রায়ই ঢেড়শ থাকে। ঢেঁড়সে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিট...

স্বাস্থ্য | 2017-10-24 17:13:03

অন্ধদেরই পৃথিবীর সবচেয়ে ভাগ্যহত বলা হয়। কারণ, চোখে যিনি দেখেন না তিনিই...

স্বাস্থ্য | 2017-10-13 11:07:42

কম খরচে কানের মাইক্রো সার্জারি শুরু হয়েছে রাজধানীর মগবাজারের আদ্-দ্বীন...

স্বাস্থ্য | 2017-10-19 13:41:34